TadantaChitra.Com | logo

২৬শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৯ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সুশান্তের বায়োপিক না বানাতে আদালতের নোটিশ

প্রকাশিত : এপ্রিল ২০, ২০২১, ১৪:২৮

সুশান্তের বায়োপিক না বানাতে আদালতের নোটিশ

বিনোদন ডেস্ক : প্রয়াত বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের জীবনী চিত্রের নির্মাতাদের নোটিশ দিল দিল্লি উচ্চ আদালত। প্রয়াত অভিনেতার বাবা কেকে সিংহের নিষেধাজ্ঞার দাবিতে আদালতের এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সুশান্তর জীবন এবং মৃত্যুর তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে সিনেমা তৈরির কথা উঠছে গত বছর থেকেই। গত বছরের ১৪ জুন সুশান্তের বান্দ্রার আবাসন থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার পর থেকে উত্তাল গোটা দেশ। প্রশ্ন ওঠে, আদৌ কি অভিনেতার মৃত্যুর কারণ আত্মহত্যা? নাকি এমন সিদ্ধান্তের পেছনে রয়েছে কারও প্ররোচনা? এমনকি হত্যার প্রসঙ্গও ওঠে সে সময়ে। একাধিক পরিচালক এই বিষয়ে চিত্রনাট্য লিখতে চেয়েছিলেন। এমনকি সুশান্তের মতো দেখতে ‘টিকটক’ তারকাকে অভিনেতার ভূমিকায় দেখা যাবে, এমন কথাও শোনা যাচ্ছিল।

কিন্তু সুশান্তের পরিবার সে বিষয়ে আপত্তি জানাতে আদালতের দ্বারস্থ হল। প্রয়াত অভিনেতার বাবা কেকে সিংহ দিল্লি উচ্চ আদালতে সুশান্তের জীবনী চিত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করার আবেদন জানালেন। তারই ভিত্তিতে নির্মাতাদের নোটিশ দিয়েছেন বিচারপতি মনোজ কুমার ওহরি। যেখানে বলা হয়েছে, অভিনেতার ব্যক্তিগত জীবনের কোনও তথ্য প্রকাশ করা যাবে না। এতে অভিনেতা ও তার পরিবারের গোপনীয়তা রক্ষার মৌলিক অধিকার লঙ্ঘন করা হবে। সুশান্তের উত্তরসুরীদের অনুমতি ছাড়া কোনও চলচ্চিত্র বা লেখা প্রকাশ করা যাবে না।

রাজপুতের বাবার আবেদনে আরও বলা হয়েছে, সুশান্তের মৃত্যু-তদন্ত এখনও বিচারাধীন। যে সিনেমাটিকে নিষেধ করার কথা বলা হয়েছে, তা আদপে ঘটনার সাক্ষী এবং তদন্তকারী আধিকারিকদের প্রভাবিত করতে পারে। এমনকি জনসাধারণের মানসিকতায় প্রভাব ফেলতে পারে। কারণ আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ায় অভিযুক্তের ঘনিষ্ঠরাই এই সিনেমার পেছনে রয়েছেন বলে সুশান্তের বাবা মনে করছেন। আবেদনপত্রের দাবি, অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবেই সিনেমাটি বানানো হচ্ছে।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্ত চিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েব সাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।