TadantaChitra.Com | logo

৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মানবতার আড়ালে ভয়ংকর ফয়সাল বাহিনী!

প্রকাশিত : মে ২১, ২০২৪, ২৩:১১

মানবতার আড়ালে ভয়ংকর ফয়সাল বাহিনী!

শেখ ফয়সাল, বয়স মাত্র ২৭। হাতে তার আড়াই কোটি টাকার ঘড়ি, যাকে তাকে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে দেন! আবার নিজেকে পরিচয় দেন মানবতার ফেরিওয়ালা। খুলে বসেছেন ফয়সাল হেল্থ সার্ভিস এক্সপ্রেস নামে প্রতিষ্ঠান। সেখানে হেল্থ কার্ড বিক্রির নামে মানুষের সেবার কথা বলে হাজার হাজার মানুষের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। মানবতার নামে সর্ব শান্ত করে ফেলছে বহু মানুষ! ধ্বংস করেছে ব্যবসায়ী পার্টনারের জীবন সংসার। সব কেড়ে নেওয়ার পরেও অনেকেই আছেন ফয়সাল আতংকে।

বিশ্বস্ত সুত্র নিশ্চিত করেছে; গরিব অসহায়দের দীর্ঘ চিকিৎসা সেবার কোনো রেকর্ড নেই। নিজেদের প্রতারণার ব্যবসা চালু রাখতে বিভিন্ন প্রশাসনের লোকজন, রাজনীতিবিদ, অভিনেতাদের পাশে ছবি তুলে ভুক্তভোগীদের ভয়ে রাখে। নির্যাতনের কথা কাউকে বললেই মামলা ও প্রশাসনের লোকজন দিয়ে তুলে নেওয়ার হুমকি দিতেন রীতিমতো।

বিভিন্ন মানুষকে ব্যবসায়ীক পার্টনারের কথা বলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন অস্ত্রের মুখে। মিরপুরে তার ফয়সাল হেলথ্ এক্সপ্রেস সার্ভিস এর অফিসে পার্টানারদের ডেকে নিয়ে পিস্তল ঠেকিয়ে চেক বই সই, নি র্যা ত ন করে ভুক্তভোগীদের জবানবন্দি ভিডিও ধারণ করে রাখা তার নিয়মিত ঘটনা। এসব ঘটনায় একাধিক মামলা, জিডি রয়েছে।

ফয়সালের অস্ত্র ও সন্ত্রাসী গ্রুপে রয়েছে মুন্না, রাসেল, আবু তাহের, সহ ১০ জনের গ্রুপ।

প্রতিবন্ধী ফয়সাল মানবতার ফেরিওয়ালা সেজে বিত্তশালীদের সাথে সুসম্পর্ক করে ব্যবসায়ীক পার্টনা করে টাকা হাতিয়ে নিয়ে তিনি রাজকীয় আলিশন জীবন যাপন করেন। বেশির ভাগ সময়ে দুবাইয়ে থাকেন এক রাত্রী যাপনে আড়াই লাখ টাকা হোটেলে বিল দেয়। ঢাকা থাকলে রাতে সময় দেন লা-মেরিডিয়ানে। দেশের বাইরে বিমানে সব চেয়ে দামী ফ্লাইটে যাতায়াত করেন। দেশে থাকলে চলে হেলিকপ্টার ও প্রাডো পাজেরো গাড়ীর বহর নিয়ে। কমপক্ষে চারজন বডিগার্ড থাকে সর্টগান নিয়ে।

এই যেনো মিল্টন সামাদ্দারের বড় ভাই। নারী ঘটিত ঘটনাও মিরপুরের ৬ নম্বরের সবার জানা। মিরপুর অফিসে এক নারী স্টাফের সাথে দৈহিক সম্পর্কে জড়ান ফয়সাল। পরে বিয়ে করে আবার ডিভোর্স দেন। মিরপুরের ৬ নম্বরের ধান্দাবাজির দোকান গুটিয়ে ফরিদপুরে স্থায়ী হওয়ার দোকানের ডেকোরেশনের কাজ চলছে।

ফয়সালের প্রতারণার মুল পুজি উচ্চপর্যায়ের র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যের সাথে ছবি তুলে ভুক্তভোগীদের ভয় দেখান এবং বিভিন্ন স্যাটেলাইট টিভিতে টাকা দিয়ে নিজের সাজানো গুছানো বক্তব্য প্রচার করে। যার সবই তার নাটক, সাধারণ মানুষের টাকা হাতানোই তার মুল টার্গেট।

ফয়সালের অস্ত্র বাহিনীর সদস্য, ব্যক্তিগত সহকারী মুন্নার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি গ্রামে আছি। মানবসেবার আড়ালে অফিসে জিম্মি করে টাকা নেওয়া হয় কিনা জানতে চাইলে, মুন্না বলেন আপনি অফিসে যান, ফয়সালের সাথে কথা বলেন, আমি এই বিষয়ে কিছু বলতে পারবোনা।

পরে ফয়সালের ব্যক্তিগত ফোনে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

কাব্যকস সুপার মার্কেট, ৩ ডি কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫।

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২, ০১৬০০০১৪০৪০

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com, tchitranews@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

Web Design & Developed By
A

তদন্ত চিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েব সাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।