TadantaChitra.Com | logo

২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

খিলগাঁও নূর মোহাম্মদের নেতৃত্বে থানা শ্রমিক লীগের চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা!

প্রকাশিত : নভেম্বর ০৯, ২০১৯, ১৫:৪৮

খিলগাঁও নূর মোহাম্মদের নেতৃত্বে থানা শ্রমিক লীগের চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মাদকে ভাসছে খিলগাঁও এমন শিরোনাম এর আগে বেশ চাউর ছিল। একজন সহকারী পুলিশ কমিশনার এসে অনেকটা মাদক নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেও পরবর্তীতে সফলতার হাত ফসকে গিয়ে গত কয়েকদিন আগে বদলীর আদেশ পেয়ে মতিঝিল জোনে যোগদান করেন। আলোচিত এ পুলিশ অফিসারের নাম জাহিদুল ইসলাম সোহাগ। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন মেধাবী ছাত্র ছিলেন। পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করার পর বড় বড় মাফিয়া ও অপরাধী তার হাতেই গ্রেফতার হয়েছে। তেমনই খিলগাঁও জোনে যোগদান করেই অত্র এলাকার সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও মাদক সম্রাট নূর মোহাম্মদকে বিপুল পরিমান ইয়াবা সহকারে গ্রেফতার করেন। অনেক তদবীরের মারপ্যাচে বিপুল পরিমান ইয়াবা এসে দাড়ায় ৪০০ পিসে।

নারী দিয়ে দেহ ব্যবসা, ইয়াবার আসর সবই চলে নূর মোহাম্মদের আস্তানায়। রেখা, সুমি, সোমা, স্বর্না তার আস্তানার নিয়মিত জাতায়েত করেন। এদের মাধ্যমেই বেশির ভাগ ইয়াবা বিক্রি করান নূর মোহাম্মদ। অনেকের কাছে এরা নূর মোহাম্মদের অলিখিত স্ত্রী হিসেবে পরিচিত। গোড়ানে অবস্থানকারী স্বর্নার নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর বিভিন্ন অলিগলি। রেখা দেখেন সিপাহিবাগ ও মেরাদিয়া এলাকা।

সূত্র জানায়, খিলগাঁও জোনের সাবেক বিতর্কিত এসি নাদিয়া জুঁইয়ের লালন পালনকৃত সিপাহীবাগের মাদক সম্রাট নুর মোহাম্মদ। ইতিমধ্যে এই মাদক সম্রাটকে নিয়ে পুলিশের একটি গোয়েন্দা সংস্থা সাতটি প্রতিবেদনও দিয়েছে। গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন গুলো আমাদের এ প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। এর আগে সাবেক এসি নাদিয়া জুঁই খিলগাঁও জোনে থাকাকালেও ওই গোয়েন্দা সংস্থা তিন টি প্রতিবেদন দিলেও এসি নাদিয়া’র সাথে মাদক সম্রাট নূর মোহাম্মদের সু-সম্পর্ক থাকায় খিলগাঁও থানা পুলিশ এই মাদক সম্রাটের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ওই গোয়েন্দা সংস্থা একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, খিলগাঁও থানার একাধিক মামলার আসামী নূর মোহাম্মদ (৩৯), পিতাঃ আঃ রহমান। বাসাঃ ৩০০/১ সিবাহীবাগ আইচক্রীম গলি, থানাঃ খিলগাঁও- ঢাকা, একজন শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী।

ইতিপূর্বে গত ০৭/০৪/২০১৮, ৩০/০৪/১৮ ও ১০/০৭/২০১৮ খ্রিঃ খিলগাঁও থানার একজন শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী হিসাবে প্রতিবেদন দাখিল করার পর এবং সারা দেশব্যাপি মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনাকালে উক্ত ব্যক্তি অত্র এলাকা ছেড়ে দীর্ঘদিন যাবত আত্মগোপন করে ছিলেন বলিয়া জানা যায়। উক্ত ব্যক্তির নামে খিলগাঁও থানার মামলা নং ৫৪ তাং- ২৩/১০/১৭ খ্রিঃ মামলা নং-৩৪ তাং- এবং মামলা নং-৭৪, তাং- ২৪/০৫/১৮ খ্রিঃ। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, গত ৩০/১২/২০১৮ খ্রিঃ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কিছুদিন পর আবার অত্র এলাকায় প্রবেশ করে তার একান্ত সহযোগী ১, সৌরভ রাসেল (৩১) মোবাঃ ০১৬১১-৪১৪১৫৬, এবং তার আপন ছোট ভাই মোঃ সোহেল (৩১) মিলে খিলগাঁও থানাধীন সিপাহীবাগ টেম্পুস্ট্যান্ড, আইচক্রীমগলি, গোড়ান, নবীনবাগ, ভ‚ইয়াপাড়া সহ নিজ বাসায় আবারো মাদকের রমরমা ব্যবসা করিতেছেন। ইতিপূর্বে উক্ত ব্যক্তির নামে ০৩ (তিন) বার মাদক সম্পর্কে রিপোর্ট প্রদান করার পরও ইহার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন না করায় অত্র এলাকার যুব সমাজ মাদকাসক্ত হয়ে ছিনতাই সহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সহিত জড়িয়ে পড়ছেন।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, উক্ত ব্যক্তি তার বাসার দোতলায় প্রতিদিন সন্ধা ১৮,০০ ঘটিকা হতে ভোর ০৫,০০ ঘটিকা পর্যন্ত জুয়ার বোর্ড পরিচালনা করে থাকেন। উক্ত জুয়ার বোর্ডে প্রতিদিন চলে লক্ষ লক্ষ টাকার খেলা। ইহাছাড়াও সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তার বাসার চার পাশে এবং আইচক্রীম গলির মাথায় সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে সার্বক্ষনিক পর্যবেক্ষন করেন।

অন্য একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, খিলগাঁও থানাধীন মোঃ বাবুল হোসেন ওরফে পুলিশ বাবুল, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক, মোঃ ইসমাইল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক, মোঃ ইকবাল মিঝি, সিনিঃ সহ সভাপতি, মিজানুর রহমান স্বপন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, জাতীয় শ্রমিক লীগ, খিলগাঁও থানা। উক্ত শ্রমিক লীগের নেতা মোঃ বাবুল এর নেতৃত্বে মোঃ ইসমাইল হোসেন, মোঃ ইকবাল মিঝি, মিজানুর রহমান স্বপন খিলগাঁও থানাধীন জোড়পুকুর মাঠ হতে গোড়ান ৮ নং রোড, জোড়পুকুর হতে গোড়ান আদর্শবাগ, জোড়পুকুর হতে গোড়ান টেম্পুস্ট্যান্ড পর্যন্ত ৯০ হতে ১০০ টি সিএনজি হতে প্রতিদিন ৩৫০ টাকা হারে চাঁদা উত্তোলন করেন। উক্ত চাঁদা হতে খিলগাঁও থানা পুলিশকে প্রতি সপ্তাহে ১০,০০০ হাজার টাকা দিয়ে থাকেন।

গোয়েন্দা সংস্থার অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, মোঃ মিজানুর রহমান হোসেন, সভাপতি, নূর মোহাম্মদ, সাধারন সম্পাদক, জাতীয় শ্রমিক লীগ, খিলগাঁও থানা, সৌরভ রাসেল। মোঃ মিজানুর রহমান হোসেন এর নেতৃত্বে নূর মোহাম্মদ ও সৌরভ রাসেল সিপাহিবাগ টেম্পুস্ট্যান্ড হতে দৈনিক বাংলা এবং গোড়ান টেম্পুস্ট্যান্ড হতে দৈনিক বাংলা পর্যন্ত ৬০ টি থেকে ৭০ টি লেগুনা চলে। প্রতি লেগুনা হতে দৈনিক ৬০০ টাকা হারে চাঁদা উত্তোলন করে। উক্ত চাঁদা হতে খিলগাঁও থানা পুলিশকে সপ্তাহে ১০,০০০ হাজার টাকা দিয়ে থাকেন। বাকী টাকা তারা ভাগভাটোয়ারা করে নেন। উক্ত নূর মোহাম্মদ খিলগাঁও থানার একজন মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে খিলগাঁও থানায় মাদক, মারামারি, চাঁদাবাজির একাধিক মামলা রয়েছে। ইতিপূর্বে নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে একাধিক প্রতিবেদন দিয়েছেন বলে জানান এই গোয়েন্দা সংস্থাটি। আরো আসছে পরবর্তী গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৯৭২৬৪৯৬১২, ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

error: Content is protected !!