TadantaChitra.Com | logo

৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৫ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ভোলায় প্রতিবন্ধিকে ধর্ষণ, আমার পেডে কষ্ট, ভমি আয়, খালি মাইনষে চেতায়.. বললেন ভুক্তভোগী!

প্রকাশিত : জুলাই ১৮, ২০২০, ০৯:৫১

ভোলায় প্রতিবন্ধিকে ধর্ষণ, আমার পেডে কষ্ট, ভমি আয়, খালি মাইনষে চেতায়.. বললেন ভুক্তভোগী!

এইচ এম নাহিদ, ভোলাঃ স্বামী স্ত্রী দু’জনই মানসিক প্রতিবন্ধি। আম্পানের ঝরের রাঁতে নিকটস্থ সাইক্লোন সেল্টারে জীবন বাচাঁতে আশ্রয় নেয়। এই আশ্রয় কেন্দ্রেই যে তাদের সর্বনাশ অপেক্ষা করছে কে জানতে। ঘুমন্ত স্বামির পাশে থেকে প্রতিবন্ধি ঘুমন্ত স্ত্রীর মুখে গামছা পেছিয়ে ধর্ষণ করে স্থানিয় যুবক। ঘটনাটি ভোলার প্রত্যন্ত চর চটকিমারায়। চরটি সদর উপজেলার ভেদুরিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের তেতুলিয়া নদীর ওপার।

স্থানিয়রা জানান, দু’বছর হলো মানসিক প্রতিবন্ধি আলমগীরের বিয়ে হয় পাশের গ্রামের মানসিক প্রতিবন্ধি যুবতীর সাথে। কোন সন্তান সন্তুতি নাই। ইদানিং আলমগীরের বউয়ের শারিরীক অবস্থা অস্বাভাবিক দেখা দিলে প্রতিবেশীরা আলমগীর ও তার বউকে চাপদিলে ঘটনার কারন জানাযায়। প্রতিবেশী নেজু হাওলাদারের ছেলে জাকির মাঝি (২৮) আম্পানের ঝরের রাঁতে মুখে গামছা পেছিয়ে ধর্ষণ করে আলমগীরের প্রতিবন্ধি স্ত্রীকে। সেই থেকে প্রায়ই আলমগীরের বসত ঘরে গিয়ে বউকে ধর্ষণ করে জাকির। এখন বউটা গর্ভবতী।

গত ১৪ জুলাই রোজ মঙ্গলবার বিকেল ৩ টার সময় ধর্ষকের বাড়ীর উঠানে বসে ইউনিয়ন চকিদার ছগীর আহাম্মেদ (৫৫) (গ্রাম পুলিশ) ধর্ষক জাকিরের আপন ভাই কাশেম মাঝি (৫৫), রুহুলআমিন মাঝি (৫০), ফরিদ মাঝি (৪০) আনোয়ার ডাক্তার (৪৫), জসিম বেয়ারি (৪০), ইউছুপ ঘটক (৫০) ধর্ষক জাকিরের কোন শাস্তি বা জরিমানা ছাড়াই বৈঠক শেষ করে রায় দেন এই বলে যে, জাকির আর আলমগীরের ঘরে আসতে পারবেনা। প্রতিবন্ধি দম্পত্তিকে ঘটনা এখানেই ধামা চাপা দিতে হবে বলে হুমকি দেন সালিশদারগণ।

এদিকে ঘটনা জানাজানি হওয়ায় আলমগীর ও তার বউকে জাকির ও তার ভাইয়েরা এলাকা ছাড়া করার পায়তারা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কি হবে গর্ভপতি প্রতিবন্ধি ও তার অনাগত সন্তানের ভবিষ্যৎ। গ্রামবাসী এই অবস্থায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

প্রতিবন্ধি ধর্ষিতার বলছেন। ঘর দিয়া পানি পড়ে, এর লাইগা দালান ঘরে গেছি থাওনের লাইগা। আমাগো পাশের বাড়ীর জাকির মাঝি (২৮) পিতা নেজু হাওলাদার। তুফানের রাইতে আমার শরীরের উপর উইঠা অনেক কষ্ট দিছে । তহন থেইকা প্রতিরাইতেই আমাগো ঘরে আইসা আমার উপর পারাপারি করে। আর কয়, কেওরে কইলে আমাগোরে মাইরা ফালাইবো। এহন আমার খালি ভমি আয়, কিছু খাইতাম পারিনা, আমার পেডেও কষ্ট, খালি মাইনষে চেতায়।

ধর্ষিতার স্বামি প্রতিবন্ধি আলমগীর বলেন, জাকিরায় তুফানের রাইত থেইকা ঘন ঘন আমার ঘরে আইসা আমাগো লগে হুইয়া থাহে। কেওরে কইলে মাইরা লাইবো কইছে। এহন আমার বউর পেড বড় হইছে কা, মাইনসে আমারে খালি চেতায়। ছকির চহিদার (গ্রাম পুলিশ), কাশেম মাঝি, আনোয়ার ডাক্তার, জসিম বেয়ারি, ইউছুপ ঘটক বিচার কইরা কইছে জাকিরারে আর আমাগো ঘরে আইতেনা। এহন আর আহেনা। কাশেম মাঝি আমাগোরে এলাকার তনে খেদায়া দিবো। আমি এহন কই যামু।

প্রধান সালিশদার ছগীর আহাম্মেদ চকিদার (গ্রাম পুলিশ) ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, আমি এই সমন্ধে কিছু জানিনা। তবে ঘটনাটি আমাকে জানার জন্য ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার সিরাজ গোলদার পাঠায়। আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম তবে কোন শালিশ করিনাই।

৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার সিরাজ গোলদার ঘটনাটি সম্পুর্ণ অস্বীকার করে বলেন, আমি এই সমন্ধে কিছু জানিনা।

স্থানিয় ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম মাষ্টার এই প্রতিবেদককে বলেন, এই প্রথম আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। ঘটনার বিবরনে বুঝা যায় এটা আমার ইউনিয়েনর নিকৃষ্টতম ঘটনা। এই ধরনের অপরাধের কঠোর শাস্তি হওয়া প্রয়োজন। আমি ঘটনাটি আমলে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন...


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্তচিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।