TadantaChitra.Com | logo

৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে মা-মেয়ের নানা অপকর্ম

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ০৮:০৩

ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে মা-মেয়ের নানা অপকর্ম

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফাওজিয়া আকবর মুন্নি ও তার মেয়ে আশা হোসাইন পাসপোর্টে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে চালিয়ে যাচ্ছেন নানা অপকর্ম । মুন্নির (বি১৭৩৯৩৪৮),মেয়ে আশা হোসাইন (বিএম০৭৬৭০৭১) পাসপোর্টে রব ভবন বাসা-৩, গুলশান নর্থ সার্কেল,গুলশান-২ নামে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করা হয়েছে । নিজের নাম ঠিক রেখে বাকি যেসব তথ্য দিচ্ছে, তা পুরোপুরি বানোয়াট। অন্যের ঠিকানা ব্যবহার করায় আক্তারুজ্জামান বাদী হয়ে ২০১৮ সালের ৫ মে গুলশান থানায় (নং-২৩৭০) সাধারণ ডায়েরী করেন। পুলিশ ভেরিফিকেশনের মতো স্পর্শকাতর বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীলতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে?

খোজ নিয়ে জানা গেছে,সুদের ব্যবসার পাশাপাশি ভাড়া ফ্ল্যাট বাসা নং-১২,রোড-১৩৫,গুলশান-১ দীর্ঘদিন ধরে লাইসেন্স ব্যতীত মদ ও ইয়াবার ব্যবসার পাশাপাশি সন্ধ্যায় চলে মক্ষীরাণীদের গানের তালে তালে নৃত্য। কমিশন ভিত্তিতে পতিতা ও মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে কিছু রিক্সা ও সিএনজি এবং প্রাইভেট চালক। তাছাড়া পতিতা-খদ্দের খোঁজে ব্যবহার করা হচ্ছে শিশু-কিশোরদেরও। নিরাপদ এলাকা হিসাবে মাঝারী থেকে বড় মাপের ব্যক্তিরাও তার বাসায় গিয়ে তাদের আকাম-কুকাম সারছে প্রতিনিয়ত। পতিতা ব্যবসার পাশাপাশি খদ্দেরের ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করে গড়ে তুলেছেন কোটি কোটি টাকার সাম্রাজ্য। এতে সংসার ভাঙছে অনেক প্রবাসী ও নামীদামী ব্যাক্তিদের।এসব কাজে জড়িত রয়েছে স্থানীয় রাঘববোয়ালরা। প্রতিদিন অপরাধ করেও রহস্যজনক কারণে পার পেয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা। পতিাবৃত্তির কষাঘাতে অকালে ঝরে পড়ছে অনেক শিক্ষার্থী। মুন্নির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট । তারা কৌশলে চালাচ্ছে এসব অপকর্ম। মুন্নি ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক কয়েকটি বিয়ে করেন। স্বভাব চরিত্র ভাল না থাকায় স্বামী তালক দিয়ে দেশের বাহিরে চলে যায় । ১৫ বছর পুর্বে তার স্বামী শামীম হোসেন তালাক প্রদান করলেও বর্তমান পরিচয় পত্রে শামীম হোসেনের নাম ব্যবহার করা হচ্ছে। হাল নাগাদের সুযোগ আসলেও জাতীয় পরিচয় পত্র হাল নাগাদ করতে করেনি তিনি । এদিকে কয়েক বছর পুর্বে রব ভবন বাসা-৩, গুলশান নর্থ সার্কেল,গুলশান-২ নামে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে পাসপোর্ট করেন মুন্নি ও তার মেয়ে আশা। পাসপোর্ট ইস্যুর আগে যে পুলিশ সদস্য ভেরিফিকেশন করেছেন সেটা যথার্থ ছিল না বলে মনে করছেন সচেতন মহল।অনেকের কাছ থেকে প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছে কোটি টাকা বলে নির্ভও যোগ্য সুত্র থেকে জানা যায় । সম্প্রতি মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট গুলশান আমলী আদালত-২৭ এর বিচারিক হাকিম মুন্নির বিরুদ্ধে একটি গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেছেন। সি আর- ৬০৯/২০২০ প্রতারণা মামলায় মুন্নি জামিনে রয়েছেন । এদিকে তার বিরুদ্ধে রয়েছে অহরহ অভিযোগ ।
কথা হলে ফাওজিয়া আকবর মুন্নি জানান, আমার পাসপোর্টের ঠিকানা পরিবর্তন অনেক আগেই করা হয়েছে বলে এডিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। প্রশ্নের জবাবে মুঠোফোনে বলেন , করোনা ভাইরাসের জন্য নতুন বই দিচ্ছে না তাই ডিসেম্বওে আমার পাসপোর্টের ঠিকানা পরিবর্তন করে নিব। এদিকে স্বামী হিসেবে কাজী তুহিনের পরিচয় দিয়ে তিনি আরো বলেন , ৪ বছর সংসার হয়েছে । ডিভোর্সও হয়েছে । বর্তমানে আমাদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক । মাদক ও মক্ষীরাণীদের গানের তালে তালে নৃত্য’র কথা অস্বীকার করে তিনি বলেন , হয়তো বাসায় কোন পার্টিতে সে ভিডিও করা হয়েছিল । আপনি আমার সাথে দেখা করুন।

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের আগারগাঁও অফিস পার্সোনালাইজেশন সেন্টার (প্রধান কার্যালয়) পরিচালক মোঃ সাইদুল ইসলাম বলেন, ভুয়া ঠিকানায় পাসপোর্ট করে আমাদের কাছে কোন রিপোর্ট আসলে তখন আমরা ওটা আবার এসবির মাধ্যমে কিংবা আগে যারা তদন্ত করে পাসপোর্ট দেয় তাদের তদন্তের প্রেক্ষিতেই যদি পাসপোর্ট হয় ,২য় টাইম তাদের তদন্তে ভেরিফাই করাতে হয়।ভেরিফাই করার পর যদি ভুয়া হয় পাসপোর্টটা বাতিল করে ব্লক করে দেওয়া হবে এবং আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্তচিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।