TadantaChitra.Com | logo

৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাফল্যের জন্য বড় স্বপ্ন দেখতে হবে : দিলীপ কুমার আগারওয়াল

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ০৫, ২০২০, ০৮:৫০

সাফল্যের জন্য বড় স্বপ্ন দেখতে হবে : দিলীপ কুমার আগারওয়াল

নিজস্ব প্রতিবেদক :  জীবনে সফল হতে হলে বড় স্বপ্ন দেখতে হবে। বিশ্বে যত মানুষই সাফল্যের শিখরে পৌঁছেছেন তাদের স্বপ্ন ছিল অনেক বড় হওয়া।

২০০৫ সালে আমি একজন সাধারণ ব্যবসায়ী ছিলাম, আজ আমি এখানে শুধু চারটা কারণে- প্রথমত স্বপ্ন, আমি স্বপ্ন দেখতাম বড় ব্যবসায়ী হবার, দ্বিতীয়ত- কমিটমেন্ট, আমি যদি কোন কমিটমেন্ট করি তবে তা আজও পর্যন্ত রক্ষা করি, তৃতীয়ত- কঠোর পরিশ্রম, চতুর্থত- টাইম ম্যানেজমেন্ট। সফল আপনি হবেনই। হয় আজ, নাহয় কাল, তা না হলে পরশু।

কথা গুলো বলছিলেন, চুয়াডাঙ্গা থেকে উঠে এসে বাংলাদেশের শিল্প ব্যবসা বাণিজ্যে নেতৃত্ব দেয়া স্বনামধন্য উদ্যোক্তা দিলীপ কুমার আগারওয়াল।

তিনি বর্তমানে দেশে গোল্ড বাংক চালু এবং অর্গানিক পণ্য উৎপাদন করে বিদেশে রপ্তানি করার লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে চলেছেন।

বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং স্বর্ণ আমদানি নীতিমালা প্রণয়নের জন্যে বিশেষ ভূমিকা রেখে চলেছেন। এছাড়াও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই-এর সহ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এফবিসিসিআই এর পরিচালক হিসেবেও দুইবার দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগারওয়ালের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে সাপ্তাহিক তদন্ত চিত্রের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক জিয়াউর রহমান।

বাংলাদেশে ডায়মন্ড জুয়েলারি জনপ্রিয় এবং সহজলভ্য করে তোলার পেছনে দিলীপ কুমার আগারওয়ালের ভূমিকা অগ্রগণ্য। ডায়মন্ডওয়ার্ল্ড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে এর শাখা বাংলাদেশের জেলা শহরগুলোতে ছড়িয়ে দেয়ার স্বপ্ন নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে চলেছেন তিনি।

মফস্বল শহর থেকে উঠে এসে বাংলাদেশের শিল্প ব্যবসা বাণিজ্যে নেতৃত্ব দেয়া সফল উদ্যোক্তা দিলীপ কুমার আগারওয়ালা স্বপ্ন দেখতেন বড় ব্যবসায়ী হওয়ার। সেই স্বপ্ন নিয়েই ২০০০ সালে বাবার ও তার কনস্ট্রাকশনের ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকায় আসেন ।

কনস্ট্রাকশন ব্যবসা ছেড়ে তার এক বন্ধুর অনুপ্রেরণায় শুরু করেন ডায়মন্ড বিজনেস। তখন বাংলাদেশের মানুষের পকেটে যথেষ্ট টাকা ছিলো না। সেই সময় কেউ  ডায়মন্ডের স্বপ্ন দেখত না। তারা একটু সোনা-রুপার গহনাতেই খুশি ছিলো।  তবে তিনি স্বপ্ন দেখতেন সফল হওয়ার। সাফ্যলের জন্য ব্যক্তিজীবনে নিয়েছেন চ্যালেঞ্জ।

ব্যবসার শুরুটা ছিলো বেশ কষ্টের, হতে হয়েছে নানা প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি। দিলীপ কুমার আগারওয়াল জানান, ২০০০ সালে একটা ডায়মন্ডের এলসি করার জন্যে সময় লেগেছিল দুই বছর। যেটা বর্তমানে এখন দুই দিনেই করা যায়।

জুয়ালারি ব্যবসা শুরু করতে গিয়ে আমি প্রথম যে সমস্যার মুখোমুখি হলাম, তা হলো আমি দেখলাম এদেশে কেউ খোলা হীরা আমাদের ভাষায় যাকে বলি লুস ডায়মন্ড আনেন না। আর আনা যায়ও না। তখন নিজেকে প্রশ্ন করলাম- কেন আমি আনতে পারব না?

তারপরের সমস্যা ছিল আমাদের দেশে দক্ষ কারিগর ছিল না। আমাদের দেশের অবকাঠামোগত বিষয়গুলো ঠিক জুয়েলারি ব্যবসা বান্ধব ছিল না। এগুলো যা-ও ঠিক করলাম। এরপর ব্যাংকের লোন পাচ্ছিলাম না। কাচা সোনা বন্ধক রেখে লোন চাচ্ছি; ব্যাংক দিবে না। এগুলোর মোকাবেলা করতে হয়েছে আমাকে।

নানা চড়াই-উতরাই পার করে ২০০৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু করে ডায়মণ্ড ওয়ার্ল্ড। শুরুটা ছিলো খুবই ছোট পরিসরে৷ তখন কর্মচারীদের বসার মতো জায়গা ছিল না। এখন প্রায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের প্রায় ২০টি  শো আউটলেট আছে।

তরুণ উদ্যোক্তাদের প্রসঙ্গে দিলীপ কুমার বলেন, জীবনের লক্ষ্য ও স্বপ্ন থাকতে হবে। তাহলে কোনো না কোনোভাবে সফল হওয়া যাবেই।  সফল উদ্যোক্তা হতে হলে ক্লান্ত পরিশ্রম করতে হবে। কোনো কিছুতেই হাল ছাড়া যাবে না। তাছাড়াও তরুণরা উদ্যোক্তারা ডিজিটাল প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে  বিশ্ব জুড়ে ব্যবসা করার মতো একটা সুযোগ রয়েছে।

তরুণদের মধ্যে যারা ব্যবসায় আসতে চায় তাদের জন্য আমার পরামর্শ থাকবে যে, তাদের মধ্যে ৪টি গুণ অবশ্যই থাকতে হবে। এগুলো হচ্ছে- পরিশ্রম করার মানসিকতা, তীব্র একাগ্রতা, সময়ানুবর্তিতা এবং মানুষের আস্থা অর্জনের জন্য কাজ করে যাওয়ার দৃঢ় সংকল্প। তাদের শুরুটা ছোট করে হোক, কিন্তু লক্ষ্য থাকতে হবে বড়। অনেক বড়।

ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগারওয়াল সফল উদ্যোক্তা ও  ব্যবসার বাহিরে একজন সমাজ সেবক। সমাজ উন্নয়নেও তিনি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যেই প্রতিষ্ঠা করেছেন কলেজ, ওল্ডকেয়ার হোম। করেছেন তার মায়ের নামে ‘তারা দেবী ফাউন্ডেশন’। সমাজের কাজে বাকি জীবন উৎসর্গ  করতে চান সফল এই ব্যবসায়ী।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্তচিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।