TadantaChitra.Com | logo

১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্যান্ডি ম্যান্ডি পরার দরকার নাই বুঝতে পারছো ??…ডিসি মোকতার

প্রকাশিত : জানুয়ারি ২৬, ২০২১, ১৬:৩৩

প্যান্ডি ম্যান্ডি পরার দরকার নাই বুঝতে পারছো ??…ডিসি মোকতার

তদন্ত চিত্র: সাবেক ভোলার এসপি ও বর্তমানে বরিশাল মহানগর পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার(ডিসি) মোকতার হোসেন এর বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ। তৎকালীন সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থাকাকালীন মোকতার হোসেন এক নারী কনেষ্টবলকে সেক্সুয়াল কথাসহ তার অফিসে যেতে বলেন। ওই নারী কনেষ্টবল সেদিন তার অফিসে যাবে বলে শুনা যায়।

এরপর যেখানেই তার পুষ্টিং হয়েছে সেখানেই নারী কনেষ্টবলদের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন ভোলা জেলার এসপি মোকতার হোসেন। এছাড়াও তিনি সিরাজগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থাকাকালে এক নারী কনেষ্টবলের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়েছেন বলে একটি অডিও রেকর্ড আমাদের কাছে এসেছে। ওই অডিও রেকর্ড হুবাহু নিজে তুলে ধরা হলঃ

মেয়েঃ এই তো কোথায় আপনে??
মোকতার হোসেনঃ ঘুমাতে ছো নাকি??
মেয়ে: হে…..
মোকতার হোসেনঃ ঘুমাতে ছো????
মেয়েঃ হা ঘুমাচ্ছি, কই আপনে??
মোকতার হোসেনঃ বাসায়??
মেয়েঃ হা রুমে

মোকতার হোসেনঃ হা আমি অফিসে, কি কর???
মেয়েঃ এই তো অফিস থেকে আসি খুব মাথা ব্যাথা করতে ছিল তাই শুইছি।
মোকতার হোসেনঃ তোত দেখা করলে একটা সুযোগ ছিল।
মেয়েঃ যাইতে চাইছিলাম, মুন্সি বেটা ভাল না, বললাম আমারে আজ ডিউটি দিয়েন না কালকে দিয়েন, তাও কচ্ছে পোর্স নাই আজকের দিনটা কর।
মোকতার হোসেনঃ না স্যার আজকে আমারে ডাকছিল একবারে ফ্রি ছিল।
মেয়েঃ হিম…
মোকতার হোসেনঃ একবারে ফ্রি ছিল।
মেয়েঃ ফ্রি ছিলেন???
মোকতার হোসেনঃ হে হে …..
মেয়েঃ আজকে????
মোকতার হোসেনঃ আজকে তো শুভাষ (তৎকালীন এসপি ফরিদপুর) নাই এসপি স্যার নাই, কেই নাই।
মেয়েঃ নুসরাত??

মোকতার হোসেনঃ হে??
মেয়েঃ নুসরাত কই গেছে??
মোকতার হোসেনঃ ও তো চলে গেছে আড়াইটার দিকে।
মেয়েঃ আড়াইটার দিকে চলে যায়??
মোকতার হোসেনঃ হি……
মেয়েঃ হি হি তারপর পোস্টিং হয়নি এখনো??
মোকতার হোসেনঃ না, আসবা আজকে….এরপর স্পস্ট বুঝা যায় নি। পরে.. আসলে আজ কিছু হইতো।
মেয়েঃ ও দেখি, আপনে ওসি’ক বলছেন দেখে রাইখেন, ওসি স্যার একটু এদিক সেদিক গেলেই বাজারে গেলেই বলে যাওনা কেন? এই কর না সেই কর না এডিশনাল এসপি স্যার বলছে তোমারে দেখে রাখতে।
মোকতার হোসেনঃ ওটা আমার রেপারেন্সে দিয়া বলছে, এমনে তোমারে ই করার জন্য।
মেয়েঃ তাই

মোকতার হোসেনঃ আমার রেপারেন্স দিয়া তোমারে চাপাইয়া রাখছে, তুমি বুঝ নাই।
মেয়েঃ স্যার বলছে তোমারে দেখে রাখতে বলছে। বাজারে গেলে বলে যাবে। আমাগে বলে বাজারে গেলে বল্লে যাবে। ঠিক আছে এ জন্য বাজারেও যাইনা। বাজারও করি না।
মোকতার হোসেনঃ তুমি তুমি তিনটার দিকে, তিনটার দিকে আস কেউ থাকবে না
মেয়েঃ ও ও….আচ্ছা দেখি
মোকতার হোসেনঃ বুঝতে পারছো
মেয়েঃ হা….

মোকতার হোসেনঃ অস্পষ্ট ভাষায় কি যেন বলে, পরে.. আর এমনে শরীর ঠিক আছে তো???
মেয়েঃ হা শরীর ঠিক আছে সমস্যা নাই।
মোকতার হোসেনঃ প্যান্ডি ম্যান্ডি পরার দরকার নাই বুঝতে পারছো??।
মেয়েঃ এহ এহ না সমস্যা নাই হিম হিম সমস্যা নাই, সমস্যা নাই, সমস্যা নাই, আমি যাব নি, দেখি।
মোকতার হোসেনঃ হে….
মেয়েঃ আমি যাব দেখি, গোছ গাছ, উঠি, উঠা গোসল টোসল কইরা আপনার সাথে যাই, চুপ করে চলে যাব, তিনটার দিকে টুপ করে চলে যাব। এরপর কি যেন বলতে চায় মেয়ে….

মোকতার হোসেনঃ আসার আগে রিং দিও।
মেয়েঃ আসার আগে রিং দিব??
মোকতার হোসেনঃ রিং দিবা না নাইলে তো আমি অফিসে থাকবো না।
মেয়েঃ আহ আহ আচ্ছা ঠিক আছে।
মোকতার হোসেনঃ আমি রওয়ানা দিলাম।
মেয়েঃ হ্যায়….
মোকতার হোসেনঃ যে স্যার আমি রওয়ানা দিলাম।
মেয়েঃ হ্যায় আচ্ছা ঠিক আছে..
মোকতার হোসেনঃ বুঝতে পারছ??
মেয়েঃ হ্যা…..

মোকতার হোসেনঃ রওয়ানা দিয়ে এখানে আসলে মানি বলবা যে পোস্টিং মোস্টিং এর জন্য..রব .রবে থাকবে তো।
মেয়েঃ রব??
মোকতার হোসেনঃ রব থাকবে রব, ওই যে অর্ডার্লী।
মেয়েঃ সমস্যা নাই।
মোকতার হোসেনঃ হে…
মেয়েঃ সমস্যা নাই।
মোকতার হোসেনঃ কইও যে পোস্টিং এর ব্যাপারে আলাপ করমু।
মেয়েঃ ও আচ্ছা ঠিক আছে সমস্যা নাই।
মোকতার হোসেনঃ একটু পরিস্কার টরিস্কার কইরা আইসো।
মেয়েঃ হে হে হে…

মোকতার হোসেনঃ কইসা মাইজা সব ধুয়া মাইজা আইসো।
মেয়েঃ হা হা হি হি হি….আচ্ছা ঠিক আছে সমস্যা নাই হে হে।
মোকতার হোসেনঃ ঠিক আছে।
মেয়েঃ আচ্ছা ঠিক আছে।

মোবাইল ফোনে এমন সব কথা বলেন তৎকালীন সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোকতার হোসেন। যা মোবাইল ফোনে ধারনকৃত একটি রেকর্ডিং এর অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরেছি। ওই রেকডিংটি ছিল বর্তমান ভোলা জেলার এসপি মোকতার হোসেন ও সিরাজগঞ্জ মডেল থানার কনেষ্টবল এক মেয়ের। যা ৩ মিনিট ১৯ সেকেন্ড ধরে তাদের মধ্যে এই কথা হয়।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্তচিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।