TadantaChitra.Com | logo

১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আর্মড পুলিশের তৎপরতায় হারিয়ে যাওয়া স্বর্ণ ফেরত পেল দুবাই প্রবাসী

প্রকাশিত : এপ্রিল ০৭, ২০২১, ১৩:৪১

আর্মড পুলিশের তৎপরতায় হারিয়ে যাওয়া স্বর্ণ ফেরত পেল দুবাই প্রবাসী

অনলাইন ডেস্ক : দীর্ঘ দিন ধরে দুবাইয়ে প্রবাসী মেহেদী হাসান। দেশে ফেরেন গত ২৩ মার্চ। সঙ্গে দুইটি বারে করে নিয়ে এসেছিলেন ২৩২ গ্রাম সোনা। বাজারমূল্য প্রায় সাড়ে ১১ লাখ টাকা। এর জন্য শুল্কও পরিশোধ করেন। কিন্তু কাস্টমস জোনে তল্লাশির এক পর্যায়ে সোনার বার দুইটি স্ক্যানারে দেওয়ার পর ভুল করে তা ফেরত না নিয়েই বেরিয়ে যান। কিছুক্ষণ পর ফিরে এলেও সেই বার আর পাননি তিনি। শেষ পর্যন্ত বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের তৎপরতায় ১৩ দিন পর সেই দুইটি সোনার বার ফেরত পেয়েছেন মেহেদী হাসান।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) বিকেলে মেহেদী হাসানকে ডেকে নেওয়া হয় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। সেখানেই আর্মড পুলিশ তার হাতে তুলে দেয় সাড়ে ১১ লাখ টাকা মূল্যমানের সোনার বার দুইটি।

বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২৩ মার্চ সকালে দুবাই থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে করে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন মেহেদী হাসান। ইমিগ্রেশন শেষ করে বেল্ট থেকে ব্যাগ নিয়ে কাস্টমস জোনে যান। সেখানে কাস্টম কর্মকর্তারা তাকে তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদ করলে মেহেদী জানান, তার কাছে দু’টি সোনার বার আছে। এর জন্য তিনি শুল্ক পরিশোধ করবেন। সে অনুযায়ী সোনালি ব্যাংকের মাধ্যমে ৪০ হাজার টাকা শুল্ক পরিশোধ করেন মেহেদী।

এরপর গ্রিন জোন থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় একজন কাস্টমস কর্মকর্তা মেহেদীকে আবারও তল্লাশি করতে ডাকেন। মেহেদী তাকেও জানান তিনি সোনার বার এনেছেন এবং শুল্ক পরিশোধ করেছেন। তাকে সোনার বার দু’টি স্ক্যানারে দিতে বলা হয় এবং তাকেও বডি স্ক্যানারের ভেতর দিতে যেতে বলা হয়। কাস্টম কর্মকর্তাদের তল্লাশি শেষ গ্রিন জোন থেকে বের হয়ে যান মেহেদী। বের হয়ে যান বিমানবন্দরের টার্মিনাল ভবন থেকেও।

মেহেদী জানান, গাড়ি পার্কিং এলাকায় যাওয়ার পর তিনি খেয়াল করেন, সোনার বার দুইটি স্ক্যানারে দেওয়ার পর আনতে ভুলে গেছেন। এরপর কাস্টমস জোনে ছুটে গেলেও সোনার বার আর ফেরত পাননি। ওই সময় এক যাত্রী মেহেদীকে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অফিসে অভিযোগ করতে পরামর্শ দেন। সেই পরামর্শ মেনে মেহেদী আর্মড পুলিশের অফিসে বিস্তারিত তথ্য জানিয়ে অভিযোগ করেন। আর্মড পুলিশ সদস্যরা জানান, তারা মেহেদীর হারিয়ে ফেলা সোনার বার উদ্ধার করে দেবেন।

শেষ পর্যন্ত ১২ দিন পর মেহেদীর সেই সোনার দুইটি বার উদ্ধার করতে সক্ষম হয় বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ। মেহেদীকে ফোন দিয়ে জানানো হয় সে কথা। মঙ্গলবার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গিয়ে মেহেদী বার দু’টি ফেরত নিয়ে যান।

মেহেদী বলেন, আমি খুবই দুশ্চিন্তার মধ্যে ছিলাম। সরকারি নিয়ম মেনে শুল্ক পরিশোধ করেছিলাম বার দুইটির জন্য। এত টাকার সম্পদ হারিয়ে ফেলাটা ছিল অনাকাঙ্ক্ষিত। বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের কাছে আমি কৃতজ্ঞ, তাদের আন্তরিকতার কারণেই বার দু’টি ফেরত পেলাম।

বার দুটি উদ্ধার প্রসঙ্গে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন  বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষণ শুরু করি। সেই ফুটেজ থেকেই দেখতে পাই, একজন যাত্রী ট্রে থেকে সোনার বার দুইটি নিয়ে যাচ্ছেন। ওই যাত্রীকে শনাক্ত করতে আমাদের কিছুটা সময় লাগে।

তিনি বলেন, পরে বিমানবন্দরের বিভিন্ন সংস্থার সহায়তা নিয়ে আমরা ওই যাত্রীকে শনাক্ত করতে সক্ষম হই। তিনিও দুবাই ফেরত। তার সব তথ্য সংগ্রহের পর জানা যায়, তিনি নিজ বাড়ি ফেনীতে চলে গেছেন। তারপর তার কাছ থেকে বার দুইটি উদ্ধার করে আমার মেহেদীকে ফেরত দিয়েছি। তার সম্পদ তার কাছে ফেরত দিতে পেরে আমাদেরও ভালো লাগছে।


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যলয়

৪৭৩ ডিআইটি রোড তৃতীয় তলা, মালিবাগ রেইল গেট, ঢাকা-১২১৯

মোবাইলঃ ০১৬২২৬৪৯৬১২

মেইলঃ tadantachitra93@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

তদন্ত চিত্র কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েব সাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।